মামলার ৮ মাস পেড়িয়ে গেলেও কোন অগ্রগতি নেই খুনের মামলার

0
100

এ কে এম কায়সারুল আলম: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ও ওয়ালটনের মোবাইল সেক্টরের টেরিটরি সেলস ম্যানেজার জাকারিয়া বিন হক শুভর লাশ গত বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানাধীন তাজমহল রোডের বুশরা ডেন্টাল ক্লিনিকের সামনের একটি বাসা থেকে মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সেসময়, মোহাম্মদপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. ফারুকুল বলেন, শুভ আত্মহত্যা করেছেন কিনা বা তাকে হত্যা করা হয়েছে সেটি নিশ্চিত করে এখনই বলা সম্ভব হচ্ছে না। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন এবং ঘটনার তদন্তের পর বিস্তারিত বলা সম্ভব হবে । আপাতত বিষয়টি রহস্যজনক বলেই মনে হচ্ছে ।
শুভ মৃত্যুতে এবং পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তিকে হারিয়ে, তার বড়বোন হাসিনা নাজনিন বিনতে হক ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এর আগে সকালে তিনি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছিলেন।

মামলায় শুভর স্ত্রী ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শেহনীলা নাজ ও শাশুড়ি ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল স্কুল ও কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল আছমা বেগমসহ অজ্ঞাতদের আসামি করা হয়েছিল ।


সেসময় জাকারিয়া বিন হক শুভর মরদেহ গ্রামের বাড়ি লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডারে পৌঁছলে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবিতে এলাকাবাসী মরদেহবাহী গাড়িসহ বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে লালমনিরহাট-বুড়িমারী মহাসড়কে অনুষ্ঠিত হয় সংক্ষিপ্ত পথসভা ।

শুভর মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবিতে ২৭ সেপ্টেম্বর সকাল ১১ টা ৩০ মিনিটে তুষভান্ডারে মানববন্ধনের আয়োজন করেছিলো এলাকার লোকজন এছাড়াও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েও সুষ্ঠু বিচারের দাবীতে মানববন্ধন হলেও মামলার কোন অগ্রগতি নেই আজ অবধী । জানাগেছে, মামলাটি পিবিআই এর কাছে গেলেও অদৃশ্য কারনে সেটিই থমকে গেছে ।
শুভর শুভাকাঙ্ক্ষীরা মনে করছে খুনীরা প্রভাবশালী হওয়ার কারনে মামলার কোন অগ্রগতি নেই।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here