ওসমানীর সেই ওয়ার্ড মাস্টারের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানীর অভিযোগ

0
57

নিউজ ডেস্ক:
সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নানা ঘটনায় আলোচিত-সমালোচিত এক নাম রওশন হাবিব। দায়িত্ব পালন করছেন ওয়ার্ড মাস্টার হিসেবে। সেই ওয়ার্ড মাস্টার রওশন হাবিবের (৪০) বিরুদ্ধে এবার যৌন হয়রানীর অভিযোগ ওঠেছে। খোদ হাসপাতালেরই এক নারী কর্মচারী (অস্থায়ী) তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানীর অভিযোগ এনে থানায় সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেছেন।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি (মঙ্গলবার) সিলেট কোতোয়ালী থানায় দায়ের করা জিডিতে ওই নারী কর্মচারী অভিযোগ করেন- হাসপাতালের অভ্যর্থনা ইউনিটের অনুসন্ধান বিভাগের তার ডিউটি সাধারণত বেলা ২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত। কিন্তু রওশন হাবিব অন্যান্য সহকর্মীকে ছেড়ে দিয়ে তাকে রাত ১০টা পর্যন্ত ডিউটি করান। এমনকি গত ৬ ফেব্রুয়ারি তাকে ওই রওশন হাবিব বিভিন্ন ধরণের কুপ্রস্তাব দেন। উক্ত কুপ্রস্তাবে রাজী না হলে তিনি তাকে ভয়ভীতি ও চাকরি চলে যাবে বলে হুমকি প্রদর্শন করেন।

এ অবস্থায় তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন উল্লেখ করে এ ব্যপারে ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানান।

জিডির বিষয়টি স্বীকার করে সিলেট কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম আবু ফরহাদ জানান- জিডির প্রেক্ষিতে অভিযুক্তর বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে রওশন হাববের নারীঘটিত এমন অনেক অভিযোগ আগেও রয়েছে বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। ওই সূত্র জানায়, ২০১১ সালে রওশন হাবিব ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালের একটি ক্যাবিনে একজন নারীকে নিয়ে প্রবেশ করলে তাকে ক্যাবিনের বাইরে থেকে তালা দিয়ে রাখা হয়। পরে তার স্ত্রীকে ফোন করে আনা হলে এ ঘটনার কারণে স্ত্রীর সাথে বিবাহবিচ্ছেদও ঘটে। পরবর্তীতে রওশন হাবিবকে শাস্তি হিসেবে ওয়ার্ডমাস্টারের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে পিয়নের দায়িত্বে আনা হয়।

এছাড়া কয়েক বছর আগে একবার নারীগঠিত ব্যপার নিয়ে আত্মহত্যারও চেষ্টা করেছিলেন রওশন হাবিব।

তবে অভিযুক্ত রওশন হাবিবের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমাকে হেও করা ছাড়া আর কিছু না।’ এমনকি অতীতের সকল অভিযোগও অস্বীকার করেন রওশন হাবিব।

এ ব্যপারে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায় বলেন, ‘আমরা এরকম কোন অভিযোগ পাইনি। আর থানায় যদি অভিযোগ হয়েও থাকে তাহলে আমার জানা নেই। যদি আমাদের কাছে কোন অভিযোগ আসে তাহলে আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবো।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here