সুনামগঞ্জে ঘুমন্ত স্বামীকে হত্যার দায় স্বীকার করলেন দ্বিতীয় স্ত্রী

0
75

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় ঘুমন্ত স্বামীকে হত্যার দায় স্বীকার করেছেন দ্বিতীয় স্ত্রী রেনু বেগম। রোববার বিকেলে সুনামগঞ্জ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলগ্রহণকারী জগন্নাথপুর জোনের বিচারক শুভ দীপ পালের আদালতের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি দেন তিনি।
এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জানান, পারিবারিক বিরোধের কারণেই বৃদ্ধ আলেক মিয়াকে হত্যা করা হয়েছে। আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন রেনু বেগম। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

তিনি জানান, ঘটনার রাতে স্বামীর সঙ্গে দ্বিতীয় স্ত্রী রেনু বেগমের ঝগড়া হয়। স্বামী তাকে গালাগাল এবং মারধর করায় ক্ষোভে ঘুমন্ত অবস্থায় স্বামীর মাথায় কাটের টুকরো দিয়ে আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর ভোররাতে পালিয়ে যান তিনি।

তিন মাস আগে ওই উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নের গোতগাঁও আমিনপুররের দিনমজুর আলেক মিয়া রানীগঞ্জ ইউনিয়নের বাগময়না টেকুয়া গ্রামের আরমান মিয়ার মেয়ে রেনু বেগমকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। তার প্রথম স্ত্রী ও তিন মেয়ে দুই ছেলের সংসারে আলাদা ঘরে থাকতেন। আর নববিবাহিত স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করছিলেন আলেক মিয়া। শুক্রবার রাতে নিজ ঘরে দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে ঘুমাতে যান তিনি।

শনিবার সকালে দেখা যায় আলেক মিয়া মৃত পড়ে আছেন আর ঘরে নেই তার দ্বিতীয় স্ত্রী রেনু বেগম। নিহতের মাথায় আঘাত ও রক্তের দাগ ছিল। মাথার পাশে একটি রক্তাক্ত কাঠের টুকরো পড়ে ছিল। তার সন্তানরা বিষয়টি থানায় জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠায়।

ওই ঘটনায় জগন্নাথপুর থানায় সৎমা রেনু বেগমকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন নিহত আলেক মিয়ার মেয়ে নাছিমা বেগম। অভিযান চালিয়ে শনিবার রাতে একই উপজেলার স্বজশ্রী গ্রাম থেকে রেনু বেগমকে গ্রেফতার করে পুলিশ। রোববার আদালতে তোলা হলে স্বামীকে হত্যার দায় স্বীকার করেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here