২৫০ কোটি টাকাসহ দেশ ছেড়ে পালাচ্ছিলেন সুন্দরী

0
21

নিউজ ডেস্ক:
ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার মধ্যে কয়েক লাখ মানুষ দেশ ছেড়ে প্রতিবেশী দেশগুলোতে আশ্রয় নিয়েছেন। এরই মধ্যে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেন থেকে নগদ সমেত পালাতে গিয়ে হাঙ্গেরি সীমান্তে ধরা পড়ে গেলেন প্রাক্তন সাংসদের স্ত্রী। এই ঘটনায় রীতিমতো তোলপাড় শুরু হয়েছে গোটা ইউক্রেন জুড়ে।

জানা গেছে প্রাক্তন ইউক্রেন সাংসদ কোভিতস্কির স্ত্রী ২৮ মিলিয়ন ডলার ও ১.‌৩ মিলিয়ন ইউরো (‌ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ২২৫ কোটি টাকা)‌ স্যুটকেসে ভরে দেশ ছেড়ে পালাতে গিয়েছিলেন। ওই মহিলার গন্তব্য ছিল জাকারপাট্টিয়া প্রদেশ হয়ে হাঙ্গেরিতে প্রবেশ করা। কিন্তু হাঙ্গেরি সীমান্ত আধিকারিকদের হাতে তিনি ধরা পড়েন। নগদ টাকা বাজেয়াপ্ত করা হয়। প্রাক্তন সাংসদের স্ত্রী স্বীকারও করে নেন টাকা সমেত পালানোর বিষয়টি।

তার সঙ্গে থাকা একাধিক লাগেজ ভর্তি এসব নগদ অর্থের ছবি প্রকাশিত হয়েছে। এরই মধ্যে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ থেকে বড় অঙ্কের নগদ অর্থ অপসারণের অভিযোগ করেছে কিয়েভ।

ইউক্রেনের অন্যতম ধনী রাজনীতিক কোটভিটস্কি অবশ্য তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, তার স্ত্রী সন্তান জন্ম দেয়ার জন্য দেশ ছেড়েছেন। তার বিরুদ্ধে ২৮ মিলিয়ন ডলার ও ১.৩ মিলিয়ন ইউরো বহন করার যে অভিযোগ করা হয়েছে তা মিথ্যা।

কোটভিটস্কি বলেছেন, আমার সমস্ত টাকা ইউক্রেনীয় ব্যাংকে আছে। আমি কোনো টাকা ব্যাংক থেকে তুলিনি।

জানা গেছে, মিস কোটভিটস্কি দু’জন হাঙ্গেরিয়ান পুরুষ এবং তার মায়ের সঙ্গে সীমান্ত অতিক্রম করেছিলেন। তবে এ বিষয়ে এখনো কোনো মন্তব্য করেননি তিনি।

হাঙ্গেরিয়ান কাস্টমস কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তার সঙ্গে নগদ অর্থ থাকার ঘোষণা দেননি মিস কোটভিটস্কা। পরে তার লাগেজে তল্লাশি চালিয়ে এসব অর্থ পাওয়া যায়। তারপর তিনি ঘোষণা করেন যে, হাঙ্গেরিতে তিনি এই পরিমাণ অর্থ নিয়ে এসেছেন।