যেসব কারণে মার্কিন গ্রিন কার্ডের আবেদন বাতিল হয়

0
17

নিউজ ডেস্ক:
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাস, কাজ, অধ্যয়ন বা অবসর গ্রহণের স্বাধীনতা উপভোগ করার জন্য গ্রিন কার্ডের প্রয়োজন হবে। একবার গ্রিন কার্ড পাওয়ার পর বাকি জীবনের জন্য স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি দেওয়া হয়। তবে গ্রিন কার্ড পাওয়ার পর স্থায়ী বাসের অনুমতি পেতে কিছু সহজ নিয়ম মেনে চলতে হয়। যেমন- ট্যাক্স রিটার্ন দাখিল করা, অপরাধ না করা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে আপনার বাড়ি মনে করা।

যুক্তরাষ্ট্রে তিন ধরনের গ্রিন কার্ড ভিসা আছে, যা অভিবাসী ভিসা নামেও পরিচিত। সেগুলো হলো পরিবারভিত্তিক, কর্মসংস্থানভিত্তিক, এবং ডিভি লটারি। যাইহোক, পরিবার- এবং কর্মসংস্থানভিত্তিক ভিসা বিনিয়োগ এবং প্রতিভা থেকে শুরু করে বিবাহ এবং বংশ পর্যন্ত নানা মানদণ্ডসহ বিভিন্ন শ্রেণীবিভাগ রয়েছে।

প্রতিটি বিভাগের মধ্যে এই ধরনের পার্থক্যের মানে হল যে, নির্দিষ্ট ভিসার যোগ্যতা প্রয়োজনীয়তার উপর নির্ভর করে প্রায়শই পরিবর্তিত হয়। উদাহরণ স্বরূপ, EB-5 ইনভেস্টর ভিসা – একটি কর্মসংস্থান ভিত্তিক ভিসা। এর জন্য আপনাকে একটি বৈধ আয়ের তহবিল থেকে $800,000 বিনিয়োগ করতে হবে এবং দশ জনের কর্মসংস্থান করতে হবে। যেখানে বহুজাতিক ম্যানেজার এবং এক্সিকিউটিভদের জন্য একটি EB-1C ভিসা (এছাড়াও একটি কর্মসংস্থান-ভিত্তিক ভিসা) এর জন্য ম্যানেজারকে প্রথম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করার আগে অন্তত তিন বছরের মধ্যে একটি সম্পর্কিত বিদেশি ব্যবসায় কাজ করতে হবে। উভয় ভিসার সুনির্দিষ্টতা মেনে চলতে ব্যর্থ হলে এটি বাতিল হতে পারে।

নির্দিষ্ট এসব কারণ ছাড়াও আরও কিছু কারণ রয়েছে যার কারণে গ্রিন কার্ডের আবেদন বাতিল হয়। তার মধ্যে কয়েকটি হলো-

অপরাধমূলক রেকর্ড

নির্দিষ্ট অপরাধের জন্য দোষী সাব্যস্ত যে কেউ গ্রিন কার্ডের আবেদন করলে তা প্রত্যাখ্যাত হতে পারে। এর মধ্যে মাদক ও পতিতাবৃত্তি-সম্পর্কিত অপরাধ, খুন এবং আরও অনেক কিছু অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। কোনো অপরাধের রেকর্ড থাকলে তা আপনাকে আবেদনে প্রকাশ করতে হবে। মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে, সব অপরাধ আপনাকে গ্রিন কার্ড পেতে বাধা দেবে না। আপনার যদি কোনো অপরাধমূলক রেকর্ড থাকে, তাহলে এটি কীভাবে আপনার আবেদনকে প্রভাবিত করতে পারে তা বোঝার জন্য একজন অভিবাসন অ্যাটর্নির সাথে কথা বলা জরুরি।

মেডিকেল রিপোর্ট

যুক্তরাষ্ট্রে গ্রিন কার্ডের আবেদনকারীদের অনুমোদিত চিকিত্সকের দ্বারা একটি মেডিকেল পরীক্ষার রিপোর্ট জমা দিতে হবে। কোনো সংক্রামক রোগ থাকলে আবেদন প্রত্যাখ্যান করা হতে পারে। যদি কর্তৃপক্ষ মনে করে যে আপনার দ্বারা জনস্বাস্থ্যের ঝুঁকি রয়েছে বা সময়মতো প্রয়োজনীয় টিকা দেননি বা আপনি রাষ্ট্রের ওপর বোঝা তৈরি করতে পারেন তাহলে আবেদন প্রত্যাখ্যানের সম্ভাবনা রয়েছে।

নিরাপত্তা ঝুঁকি

মার্কিন কর্তৃপক্ষ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড, গুপ্তচরবৃত্তি, নাশকতা বা রাজনৈতিক বিদ্রোহের সাথে জড়িত থাকার জন্য সন্দেহভাজন কাউকে গ্রিন কার্ড প্রদান করা থেকে বিরত থাকে। তারা নৃশংসতা বা অন্যান্য গণহত্যা, যুদ্ধাপরাধ, সন্ত্রাসবাদ বা মানবতার বিরুদ্ধে অন্যান্য অপরাধের সাথে জড়িত থাকা কাউকে অস্বীকার করতে পারে। যদি এমন কেউ শুরুতে গ্রিন কার্ড পেয়ে থাকেন তবে পরবর্তীতে সত্য প্রকাশিত হলে গ্রিন কার্ড প্রত্যাহার করা হতে পারে। তারা নির্বাসনের মুখোমুখি হতে পারে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হতে পারে।

পূর্ববর্তী অভিবাসন অপরাধ

আপনার গ্রিন কার্ড প্রত্যাখ্যান করা হতে পারে যদি আপনি আগে অবৈধভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের চেষ্টা করে থাকেন। যদি অনুমতি ছাড়াই সীমান্ত অতিক্রম করেন বা পূর্বের ভিসার আবেদনে মিথ্যা বলেন। অভিবাসন অপরাধের মধ্যে আপনার ভিসায় অতিবাহিত হওয়া বা অপসারণ এবং নির্বাসন শুনানিতে উপস্থিত হতে ব্যর্থ হওয়াও অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। এমনকি যদি আপনি আদালতের মামলার ফলাফল সম্পর্কে উদ্বিগ্ন হন, তাহলে উপস্থিত হতে ব্যর্থ হওয়া যেকোনো ফলাফলের চেয়ে খারাপ প্রমাণিত হতে পারে।

প্রশাসনিক ত্রুটি

গ্রিন কার্ডের জন্য আবেদন করার জন্য প্রচুর পরিমাণে কাগজপত্রের প্রয়োজন হতে পারে। এজন্য প্রশাসনিক সবকিছু ঠিক রাখতে একজন অভিজ্ঞ ইউএস-লাইসেন্সপ্রাপ্ত অভিবাসন আইনজীবীর সহায়তা নেওয়া উচিত। কিছু নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে, প্রশাসনিক ত্রুটি আবেদনকারীর সাথে নাও হতে পারে, বরং পরিবারের সদস্য বা নিয়োগকর্তার সাথে যদি একজন স্পনসরের প্রয়োজন হয়। একটি সাক্ষাত্কারে যোগদান করতে, সঠিক ফি প্রদান করতে, সময়সীমা পূরণ করতে বা উপযুক্ত ডকুমেন্টেশন জমা দিতে ব্যর্থ হলে পুরো প্রচেষ্টায় বিফলে যেতে পারে।

এসব কারণে বা ‌অন্য কোনো কারণে গ্রিন কার্ডের আবেদন বাতিল হলে পুনরায় চেষ্টা করতে পারেন। এর জন্য সর্বোত্তম বিকল্প হল আপনার প্রাথমিক আবেদনের জন্য একজন অভিবাসন আইনজীবীকে নিযুক্ত করা। আবেদন প্রক্রিয়া যতটা সম্ভব মসৃণ করতে আইনজীবীকে বিস্তারিত সব খুলে বলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।