যুক্তরাষ্ট্রের ত্রাণ তহবিল থেকে ১০০ বিলিয়ন ডলার চুরি

0
55

নিউজ ডেস্ক:
যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা মঙ্গলবার জানিয়েছে যে ব্যবসা এবং মহামারীজনিত কারণে চাকরি হারিয়েছেন এমন লোকেদের সাহায্য করার জন্য কোভিড-১৯ ত্রাণ কর্মসূচি থেকে ন্যূনতম প্রায় ১০০ বিলিয়ন ডলার চুরি গেছে।

সংস্থাটির জাতীয় মহামারি জালিয়াতি পুনরুদ্ধারের সমন্বয়কারী রয় ডটসন এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, সিক্রেট সার্ভিসের কাছে জালিয়াতির যে ঘটনাগুলো নথিভুক্ত রয়েছে এবং শ্রম মন্ত্রক ও ক্ষুদ্র ব্যবসা প্রশাসনের তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে এই হিসাব করা হয়েছে। সিক্রেট সার্ভিস এই তালিকায় বিচার বিভাগ পরিচালিত কোভিড-১৯ জালিয়াতির মামলাগুলো অন্তর্ভুক্ত করেনি। খবর ভয়েস অব আমেরিকার

ডটসন বলেন, ৩ দশমিক ৪ ট্রিলিয়ন ডলারের প্রায় ৩ শতাংশ বিতরণ করা হলেও, মহামারীর এই কর্মসূচী থেকে যে পরিমাণ চুরি করা হয়েছে তাতে বোঝা যায় যে ‘অপরাধীরা অর্থের পরিমাণ দেখে প্রলুব্ধ হয়েছে’।

এই জালিয়াতির সংখ্যার বেশির ভাগই বেকারত্ব প্রতারণার মাধ্যমে হয়েছে। শ্রম মন্ত্রক জানিয়েছে যে বেকারত্ব ভাতার প্রায় ৮৭ বিলিয়ন ডলার অনুচিতভাবে দেয়া হয়ে থাকতে পারে, যার একটি উল্লেখযোগ্য অংশ জালিয়াতি করে দেয়া হয়েছে।

সিক্রেট সার্ভিস বলেছে যে তারা বেকারত্ব বীমা এবং ঋণ জালিয়াতির তদন্ত করার সময় ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি জব্দ করেছে এবং অর্থনৈতিক অংশীদার ও রাজ্যগুলোর সঙ্গে কাজ করে প্রাপ্ত তহবিলের ২ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি অর্থ ফেরত দিয়েছে।

সিক্রেট সার্ভিস জানিয়েছে যে তারা মহামারি জালিয়াতির ৯০০ টিরও বেশি সক্রিয় অপরাধমূলক ঘটনা তদন্ত করেছে। প্রতিটি রাজ্যে জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছে বলে তারা জানায় এবং এ পর্যন্ত ১০০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।