বিনিয়োগ করলেই মিলবে পর্তুগালের গোল্ডেন ভিসা ও নাগরিকত্ব

0
19

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:
২০২২ সালে গোল্ডেন ভিসা স্ট্যাটাসের জন্য নতুন নিয়ম চালু করেছে পর্তুগিজ সরকার। এটি পহেলা জানুয়ারি ২০২২ থেকে কার্যকর হয়েছে। আপনি যদি ২০২১ সালে আবেদন করে থাকেন তাহলে এই নতুন নিয়মগুলো আপনার জন্য প্রযোজ্য নয়। যাইহোক, যারা ২০২২ সালে আবেদন করেছেন বা করার কথা ভাবছেন তাদের নতুন নিয়মের মুখোমুখি হতে হবে।

গোল্ডেন ভিসা

২০১২ সালে প্রথম গোল্ডেন ভিসা চালু করে পর্তুগাল। এর আগে দেশটি গ্লোবাল ফিনান্সিয়াল ক্রাইসিস (GFC) এর মুখোমুখি হয়েছিল, যার ফলে অর্থনৈতিকভাবে বড় ক্ষতির মুখে পড়তে হয়েছিল। ২০০৩ সাল থেকে অর্থনৈতিক মন্দায় থাকা দেশটি জিএফসির কবলে পড়ে আরও খারাপ অবস্থায় পতিত হয়। এই মন্দা ও ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক (ECB) থেকে ঋণ নেয়ার পাশাপাশি সরকার দেশে বিদেশি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার উদ্যোগ নেয়।

নিঃসন্দেহে বাস্তবায়িত সবচেয়ে সফল পদ্ধতিগুলোর মধ্যে একটি হল ‘গোল্ডেন ভিসা’, যা বিনিয়োগের মাধ্যমে পর্তুগালে বসবাসের প্রস্তাব দেয়। স্কিমটি শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় ৬ বিলিয়ন ইউরোর বিনিয়োগ পেয়েছে দেশটি।

যোগ্যতার জন্য কী প্রয়োজন?

EU/EEA/সুইজারল্যান্ডের বাইরে বসবাসকারী যে কেউ এই ভিসার জন্য আবেদন করতে পারেন। তবে তাদের কোনো অপরাধমূলক রেকর্ড থাকা যাবে না। আবেদনকারীদের নিম্নলিখিত খাতের যেকোনো একটিতে বিনিয়োগ করতে হবে। সেগুলো হলো- রিয়েল এস্টেট বা একটি ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ফান্ড, বিপুল পরিমাণ মূলধন স্থানান্তর করা, কোম্পানি গঠন করা এবং কমপক্ষে ৫টি নতুন চাকরি তৈরি করা বা গবেষণা বা জাতীয় ঐতিহ্যের জন্য অর্থ দান করা।

এসব খাতের মধ্যে, রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগ এখন পর্যন্ত সবচেয়ে জনপ্রিয়।

নতুন নিয়ম

১লা জানুয়ারী ২০২২ থেকে যে পরিবর্তনগুলো ঘটেছে, তার মধ্যে সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণটি পর্তুগালের রিয়েল এস্টেট বাজারের সাথে সম্পর্কিত। ২০২১ এর শেষ অবধি এই আবেদনকারীদের পর্তুগালের যেকোন জায়গায় ৫ লাখ ইউরোর (প্রায় ৪৬ কোটি টাকা) সম্পত্তি কিনতে হতো।

নতুন নিয়মে যদিও ন্যূনতম বিনিয়োগের পরিমাণ ৫ লাখ ইউরো অপরিবর্তিত থাকলেও তারা লিসবন, পোর্তো বা আলগারভের বড় অংশ জুড়ে অবস্থিত সম্পত্তি ক্রয় করতে পারবেন না। মাদেইরা বা অ্যাজোরস দ্বীপপুঞ্জ এখনও এর জন্য সম্পূর্ণরূপে যোগ্য, সেইসাথে পর্তুগালের বেশিরভাগ অভ্যন্তরীণ অংশের সম্পত্তি কেনার ক্ষেত্রেও কোনো বাধা নেই।

সুবিধা

গোল্ডেন ভিসা স্কিমটি আনুষ্ঠানিকভাবে বিনিয়োগ কার্যকলাপের জন্য আবাসিক অনুমতি (ARI) নামে পরিচিত। এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাইরের ব্যক্তিদের পর্তুগালে স্থায়ীভাবে বসবাস না করে তাদের বিনিয়োগের ৫ বছর পর পর্তুগিজ নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করার ক্ষমতা দেয়।

মধ্যবর্তী বছরগুলোতে বসবাসের অনুমতি, অন্যান্য শেনজেন রাজ্যে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার এবং পর্তুগালে বসবাস ও কাজ করার অধিকারের অনুমতি দেয়। তবে এটি করার কোন বাধ্যবাধকতা নেই। আবেদনকারীরা একই ভিসা আবেদনে তাদের নিকটবর্তী পরিবারের সদস্যদের অন্তর্ভুক্ত করতে পারে। যার মাধ্যমে খুব সহজেই পুরো পরিবার একসঙ্গে সেখানে স্থায়ী হতে পারে।

এই স্কিমের জন্য আবেদনকারীদের জন্য কোনো ট্যাক্সের প্রয়োজন নেই। আপনি দেশটিতে বছরের ১৮৩ দিনের বেশি সময় কাটাতে চান, এই ক্ষেত্রে আপনাকে ট্যাক্স রেসিডেন্ট হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করা হবে। যদি তা হয় তবে নন-হ্যাবিচুয়াল রেসিডেন্সি (NHR) প্রোগ্রামের মাধ্যমে সুবিধাগুলো পাবেন। এটি আপনার প্রথম ১০ বছরের বসবাসের জন্য কর ছাড় দিতে পারে।