বিআইডব্লিউটিএ’র সাবেক পরিচালক মঞ্জুর হোসেনের ইন্তেকাল: বিভিন্ন মহলের শোক

0
176

নিউজ ডেস্ক:
বাংলাদেশ আভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)’র সাবেক পরিচালক মঞ্জুর হোসেন চৌধুরী ইন্তেকাল ইন্তেকাল করেছেন।
শুক্রবার বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ৬টায় তিনি আমেরিকা নিউইয়র্কের একটি হাপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন,ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন। মৃত্যকালে তার বয়স ছিলো ৮৯ বছর,তিনি ৪ ছেলের জনক।এরমধ্যে ৩ ছেলে ডাক্তার ও ১ জন আইটি বিশেষজ্ঞ, তারা সবাই আমেরিকার নিউইয়র্কে বসবাস করেন, ছেলেরা সেখানে স্ব স্ব কর্মক্ষেত্রে প্রতিষ্টিত। করোনা পরিস্হিতির কারনে মঞ্জুর হোসেন চৌধুরী ছেলেদের সঙ্গে আমেরিকায় ছিলেন। বার্ধক্যজনিত কারনে তিনি কিছুদিন যাবত অসুস্হবোধ করছিলেন,কয়েকদিন আগে তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে নিউইয়র্কের একটি হাসপাতাল ভর্তি হন,চিকিৎসাধীন অবস্হায় আজ শুক্রবার তিনি মারা যান। মঞ্জুর হোসেন চৌধুরীর বাড়ি সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার ইউনিয়নে খুরুমখলা গ্রামে। তিনি পাকিস্তান আমলে মুসলিমলীগের অন্যতম প্রতিষ্টাতা,আসাম প্রদেশের সাবেক মন্ত্রী,সিলেটের গোলাপগঞ্জের বাসিন্দা আব্দুল মতিন চৌধুরী কলা মিয়ার একমাত্র মেয়ের জামাই ছিলেন। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ সরকারে সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও স্কুল ও কলেজ জীবনের সহপাঠী ছিলেন। মঞ্জুর হোসেন চৌধুরী শিক্ষা জীবন শেষে পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসের অধীনে সরকারী চাকুরীতে যোগদান করে,তিনি সততা ও দক্ষতার সাথে বিভিন্ন দফতরের গুরুত্বপুর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন।মহান মুক্তিযোদ্ধের পর বঙ্গবন্ধু সরকারের অধিনে আবার বাংলাদেশ আভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) তে এর একজন বিশেষজ্ঞ হিসেবে যোগদান করে ৯০ দশকের শুরুতে এ দফতরের পরিচালক পদে থেকে তিনি অবসর গ্রহন করেন। ১৯৯৩ সালে সিলেট সদর উপজেলা টুকেরবাজার এলাকার মানুষ যখন একটি কলেজ প্রতিষ্টার উদ্যোগ নিয়ে ঢাকায় মঞ্জুর হোসেন চৌধুরীর স্মরণাপন্ন হলে তিনি স্বতঃস্ফূর্তভাবে এ উদ্যোগকে সমর্থন করে ঢাকায় অবস্হানরত সিলেটের বিশিষ্টজনদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা চালিয়ে কলেজ প্রতিষ্টার এ উদ্যোগকে সফল বাস্তবায়নের রুপদান করেন।তিনি ওই কলেজের প্রতিষ্ঠাকালীন পরিচালনা কমিটির সভাপতিরও দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর প্রচেষ্টা ও প্রশাসনিক সহযোগিতার ফলে অনেক প্রতিকুলতা থাকার পরও ১৯৯৩ সালে এ কলেজ প্রতিষ্টা করার পর ১৯৯৪ সালে সেটি এমপিও ভুক্তি হয়। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত উক্ত কলেজের গরিব মোধাবী ছাত্র-ছাত্রীদেরকে প্রতি বছর “মঞ্জুর হোসেন চৌধুরী শিক্ষাবৃত্তি”র নামে বৃত্তি প্রদান করে আসছেন। স্বজ্জ্বন ও গুণী এব্যাক্তির মৃত্যুর সংবাদে এলাকাবাসী সহ দেশ ও বিদেশে পরিচিত মহলে শোকের ছায়া নেমে আসে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিভিন্ন মহলের শোক

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড,এ কে আব্দুল মোমেন এমপি মঞ্জুর হোসেন এর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।
এক শোক বার্তায় তিনি মরহুমের কর্মময় জীবনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন,মঞ্জুর হোসেন একজন সুশিক্ষিত, সৎ ও মেধাবী স্বজ্জন ব্যাক্তি ছিলেন।কর্মক্ষেত্রে তিনি যোগ্যতা ও সফলতার স্বাক্ষর রেখে সমাজ ও দেশের উন্নয়নে যথেষ্ট অবদান রেখেছেন।তিনি মহান আল্লাহর কাছে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোক সন্তপ্ত সকলের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান। এদিকে শোক প্রকাশ করেছেন সাবেক সচিব, ঢাকাস্হ জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সভাপতি ড,এ কে আব্দুল মুবিন, বাংলাদেশ পল্লী শিশু ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান এ এস এ মুয়িয সুজন,বাংলদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও শাহ খুররম ডিগ্রী কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল,সিলেট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ,কলেজের সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ, সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন, কলেজ বাস্তবায়ন পরিষদের অন্যতম সদস্য অধ্যাপক আক্রাম আলী,অধ্যাপক শফিকুর রহমান অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক,কলেজ বাস্তবায়ন ছাত্র পরিষদের আহবায়ক এডভোকেট নুরে আলম সিরাজী, সদস্য সচিব ও সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাব সাধারন সম্পাদক মকসুদ আহমদ মকসুদ প্রমুখ।

শাহ খুরর ডিগ্রী কলেজ মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল

শাহ খুররম ডিগ্রী কলেজের অন্যতম প্রতিষ্টাতা সদস্য,শিক্ষাবিদ মঞ্জুর হোসেন চৌধুরীর মৃত্যুর সংবাদে শুনে তাঁর রুহের মাগফিরাত কামনা করে শুক্রবার বাদ জুমআ কলেজ মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল করেছেন এলাকাবাসী। দোয়া পুর্ববর্তী আলোচনায় কলেজ প্রতিষ্ঠায় মঞ্জুর হোসেনের অসামান্য অবদানকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে মহান আল্লাহর কাছে তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোক সন্তপ্ত পরিবার পরিজনের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানানো হয়। পরে মরহুমের মাগফেরাত কামনা অসুস্হ সকলের সুস্হতা ও দেশের শান্তি ও কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।এতে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক। এসময় উপস্হিত ছিলেন সিলেট জেলা আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট নুরে আলম সিরাজী, সিলেট জেলা পরিষদ সদস্য মোহাম্মদ শাহনুর, সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাব সাধারন সম্পাদক মকসুদ আহমদ মকসুদ,সিলেট সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মিল্লাত হোসেন চৌধুরী,সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আমির উদ্দিন আহমদ,টুকেরবাজার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি শাহাব উদ্দীন লাল, শাহ খুররম ডিগ্রী কলেজের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ কমরুদ্দীন,সিলেট সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধার সম্পাদক মোঃ আলি হোসেন,যুবলীগ নেতা রাইসুল হক রাসেল,আনসার আহমদ,আজিজুর রহমান জালালবাদ থানা ছাত্রলীগ সভাপতি মোঃ আলী বাহার,এডোকেট আজিজুর রহমান সুমন,যুবলীগ নেতা মোঃ কুতুব উদ্দিন,বিরহাম উদ্দিন,তাজির আলী প্রমুখ।