বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের সৌজন্য সাক্ষাৎ

0
25

নিউজ ডেস্ক:
বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল লতিফ বিন রশিদ আল জায়ানির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত ড. মো. নজরুল ইসলাম।

রোববারের (২০ মার্চ) সাক্ষাৎকারে রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশ ও বাহরাইনের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বৃদ্ধির গুরুত্ব তুলে ধরেন। এসময় বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ঢাকা সফরের আমন্ত্রণের একটি কপি দেন রাষ্ট্রদূত। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমন্ত্রণপত্রটি আন্তরিকভাবে নেন ও শিগগির ঢাকা সফরের আগ্রহ প্রকাশ করেন।

রাষ্ট্রদূত করোনা মহামারির সময় বাংলাদেশে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতা, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, নারীর ক্ষমতায়ন, খাদ্য নিরাপত্তা অর্জন ও জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে সক্ষমতা অর্জনসহ বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার কথা তুলে ধরেন।

এছাড়া তিনি করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকারের নেওয়া বিভিন্ন কার্যক্রম বাহরাইন পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানান রাষ্ট্রদূত ড. মো. নজরুল ইসলাম।

করোনার আগে দেশে এসে ভিসার মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় পুনরায় বাহরাইনে ফিরতে না পারা প্রায় এক হাজার প্রবাসীর কথা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল লতিফ বিন রশিদ আল জায়ানিকে।

রাষ্ট্রদূত বলেন, বাহরাইন সরকারের কাছে একাধিকবার ভিসার মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়া প্রবাসীদের তালিকা পাঠানো হয়েছে। কিন্তু বিষয়টি এখনো সুরাহা হয়নি।

পরে বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ বিষয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে ফলপ্রসূ সিদ্ধান্তের আশ্বাস দেন।

অপরদিকে সম্প্রতি বাংলাদেশের নাগরিকদের বাহরাইনের ভিসা পেতে সমস্যা হচ্ছে উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ব্যক্তিগত হস্তক্ষেপ কামনা করেন। একই সঙ্গে দুই দেশের নাগরিকদের মধ্যে অধিকতর যোগাযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে কূটনৈতিক ও অফিসিয়াল পর্যায়ে ভিসা অব্যাহতি সংক্রান্ত চূড়ান্ত হওয়া চুক্তিটি সইয়ের বিষয়ে প্রস্তাব করেন।

এর আগে, ২০১৫ সালে ফরেন অফিস কনসাল্টেশনের (এফওসি) জন্য দুই দেশের মধ্যে একটি এমওইউ সই হয়। রাষ্ট্রদূত দুই দেশের মধ্যকার অর্থনৈতিক, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়াসহ সব ক্ষেত্রে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নে এফওসি হওয়াটা জরুরি উল্লেখ করেন ও এ বিষয়ে বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

তিনি আরও বলেন, ঢাকা প্রথম ফরেন অফিস কনসাল্টেশন আয়োজনে বেশ আগ্রহী। এর প্রস্তুতি হিসেবে দুই দেশের সচিব পর্যায়ে সফর হতে পারে। বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে এ বিষয়ে একমত পোষণ করেন ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।