বঙ্গবন্ধুর শস্যচিত্রে উঠছে গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে

0
109

নিউজ ডেস্ক:
‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ প্রতিকৃতি গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে স্থান পেতে যাচ্ছে। বগুড়ার শেরপুর উপজেলার বালেন্দা গ্রামের ফসলি মাঠে একশ বিঘা জমির উপর গাঢ় বেগুনি ও সবুজ ক্যানভাসে ফুটিয়ে তোলা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি পরিদর্শন করেছেন গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের মনোনীত প্রতিনিধিরা। রেকর্ড হওয়ার সব শর্ত পূরণ হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তারা।

মঙ্গলবার (৯ মার্চ) ‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ প্রতিকৃতি দেখতে সরেজমিনে পরিদর্শনে আসেন সংস্থাটির দুই সদস্য শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য (ভিসি) প্রফেসর ড. কামাল উদ্দিন আহম্মদ এবং বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. এমদাদুল হক চৌধুরী।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে জাতীয় পরিষদের উদ্যোগে এবং বেসরকারি কোম্পানি ন্যাশনাল এগ্রিকেয়ারের সহযোগিতায় ‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ নামে এই প্রতিকৃতি তৈরিতে গিনেজ ওয়াল্ড রের্কডস কর্তৃপক্ষের সব শর্তই পূরণ হয়েছে মন্তব্য করেছেন সংস্থাটির প্রতিনিধি প্রফেসর ড. কামাল উদ্দিন আহম্মদ। তিনি বলেন, দুই জাতের ধানের চারায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিচ্ছবি ফুঠে উঠেছে। তাই আগামী তিনদিনের মধ্যে লন্ডনের গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিবেদন পাঠানো হবে। আর সাতদিনের মধ্যেই ফলাফল জানা যাবে।

বিশ্বের সর্ববৃহৎ শস্যচিত্র হিসেবে এটি গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে স্থান পাওয়ার সব শর্তই পরীক্ষা করেন প্রতিনিধিদলের সদস্যরা। সবশেষ বিগত ২০১৯ সালে চীনে তৈরি শস্যচিত্রটির আয়তন ছিল ৮ লাখ ৫৫ হাজার ৭৮৬ বর্গফুট। আর এই শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধুর আয়তন ১২ লাখ ৯২ হাজার বর্গফুট। শস্যচিত্রের দৈর্ঘ্য ৪শ মিটার এবং প্রস্থ ৩শ মিটার। যা হবে বিশ্বের সর্ববৃহৎ শস্যচিত্র।

এছাড়া শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবি তৈরি করার জন্য গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের শর্ত অনুযায়ী দুই ধরনের ধানের চারা লাগানো হয়েছে। যার মাধ্যমে জাতির জনকের সুস্পষ্ট অবয়ব ফুটে উঠেছে বলেও জানান তারা।