পাসপোর্ট তদন্তে টাকার সাথে দুধ ও নেন এসআই!

0
103

নিউজ ডেস্ক:
সিলেটের বিশ্বনাথে পাসপোর্ট তদন্তে টাকার সাথে লাগে দুধ! এমন অভিযোগ ওঠেছে বিশ্বনাথে কর্মরত ডিএসবির এক এসআই জাকিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে। এখানেই শেষ নয়, টাকার জন্য পাসপোর্ট তদন্তের সময় পাসপোর্টগ্রহীতার সাথে অশোভন আচরণও করেন। প্রথমে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করেন এবং পাসপোর্টগ্রহীতার সাথে দেখা করেই প্রথমে তথ্য অনেক কিছু ভুল এমন নানান হুমকি দিয়ে ভয় দেখানো শুরু করেন। এটাই হলো তার টাকার এমাউন্ট বাড়ানোর মূল হাতিয়ার। তিনি প্রকাশ্যে যত্রতত্র বসে লোকজনের কাছ থেকে টাকা নেন। ভিডিওসহ টাকা নেয়ার অনেক প্রমাণও রয়েছে অনেক গ্রাহকদের কাছে।

জানা যায়, উপজেলার সৈয়দপুর সদুরগাঁও গ্রামের আব্দুর রহমানের পুত্র মো. তাহির মিয়া নতুন পাসপোর্টের আবেদন করেন। আর ওই পাসপোর্টটি তদন্তের দায়িত্ব পান এসআই জাকিরুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার তাহির মিয়ার মোবাইল ফোনে যোগাযোগও করেন তিনি। কিন্তু ওইদিন সন্ধ্যায় তাহির মিয়া উপজেলা সদরে গেলেও দেখা করেননি এই তদন্তকারি কর্মকর্তা জাকিরুল।

শুক্রবার বিকেলে পৌর শহরের ভোজনঘর রেস্টুরেন্টের একটি ক্যাবিনে গিয়ে এসআই জাকিরুল ইসলামকে ফোন দেন তাহির মিয়া। তখন তার সাথে ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক সাইদুর রহমান শাহিদ। এসময় এসআই জাকিরুল ইসলাম সেখানে গিয়ে তাহির মিয়ার সাথে খারাপ আচরণ করে এখান থেকে সরিয়ে অন্যত্র মুসলিম সুইটমিটে নিয়ে যান। সেখানে গিয়ে তাহির মিয়ার কাছ থেকে নগদ ১ হাজার টাকা ও দুই লিটার দুধ নেন।

তাহির মিয়া দুঃখ প্রকাশ করে বলেন- পাসপোর্টের সব কাগজপত্র সঠিক থাকার পরও প্রথমে নানান হুমকি-ধামকি দেন। এরপর তার কাছ থেকে ১ হাজার টাকা আর দুই লিটার দুধ নেন এসআই জাকিরুল ইসলাম।

এ বিষয়ে সত্যতা জানতে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক সাইদুর রহমান শাহিদ জানান- এসআই জাকিরুল ইসলাম তাহির মিয়ার সাথে চরমভাবে খারাপ আচরণ করার সময় তার পাশে উপস্থিত ছিলেন বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম খায়ের।

মোবাইল ফোনে এসআই জাকিরুল ইসলামের কাছে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি কথা বুঝেননি বলে ফোন কেটে দেন।

এছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরি সদস্য এএইচএম ফিরোজ আলী বলেন- এসআই জাকিরুল ইসলাম জনসম্মুখে প্রকাশ্যে টাকা দাবি করেন। এভাবে তার ছেলে ও মেয়ের পাসপোর্ট তদন্তের জন্য ১ হাজার টাকা দাবি করে নিয়েছেন।

এব্যাপারে জানতে চাইলে বিশ্বনাথ থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) শামীম মূসা বলেন- তার এমন আচরণের বিষয় উল্লেখ করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে রিপোর্ট দেয়া হয়েছে। তথ্যসূত্র: সিলেট ভয়েস