টাইগারদের টানা পঞ্চম সিরিজ জয়

0
17

ক্রীড়া ডেস্ক:
ওয়ানডে ক্রিকেটে যেন অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে তামিম ইকবালের বাংলাদেশ। পরিসংখ্যান অন্তত তাই বলে। সর্বশেষ ৭টি ওয়ানডে সিরিজের ৬টিতে সিরিজ জয় টাইগারদের। আজ নাসুম আহমেদ ও মেহেদী হাসান মিরাজের স্পিনে ক্যারিবীয় ইনিংস ধসে পড়ে মাত্র ১০৮ রানেই।

সহজ এ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ৯ উইকেটের দাপুটে জয় পেয়েছে সফরকারী বাংলাদেশ। আর তাতেই এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজ ২-০ ব্যবধানে জিতে নিয়েছে টাইগাররা। ১০৯ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে তামিম ও লিটন দাসের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ২১ ওভারেই জয়ের দ্বারে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ। দেশসেরা ওপেনারের অর্ধশতকে ৯ উইকেটের বিশাল জয় নিশ্চিত হয়।

এর আগে টসে জিতে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেন অধিনায়ক বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক। দেশ সেরা এই ওপেনারের সিদ্ধান্তকে শুরুতেই সঠিক প্রমাণ করেন ১২ মাস পর দলে সুযোগ পাওয়া মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। কাইল মায়ার্সকে সাজঘরে ফেরান এই অলরাউন্ডার। মোসাদ্দেকের উইকেট শিকারের মিছিলে যোগ দেন নাসুম আহমেদ। শামার ব্রুকস ও ওপেনার শাই হোপকে সাজঘরে ফেরান এই বাঁহাতি স্পিনার।

প্রথম ওয়ানডেতে রিভিউয়ের জন্য উইকেট বঞ্চিত হয়েছিলেন নাসুম। কিন্তু দ্বিতীয় ওয়ানডেতে আর সেই আক্ষেপ পুরতে হয়নি সদ্য অভিষিক্ত হওয়া এই ক্রিকেটারের। ওপেনার হোপকে ফেরানোর এক বল পরই উইন্ডিজ অধিনায়ক নিকোলাস পুরানকে গোল্ডেন ডাকের লজ্জায় ২২ গজ ছাড়া করেন এই বাঁহাতি স্পিনার। দলীয় ৪৫ রানের ৪ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে ক্যারিবিয়ানরা।

পঞ্চম উইকেট জুটিতে দলের ব্যাটিং বিপর্যয় কাটানোর চেষ্টা করেন রোভম্যান পাওয়েল ও ব্রেন্ডন কিং। কিন্তু এ জুটিকে ২৪ রানের বেশি দূর যেতে দেননি বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম। ব্যক্তিগত ১৩ রানে শরিফুলের বলে ক্যাচ আউট হন পাওয়েল। এরপর বিপদ আরও বাড়ে মেহেদি হাসান মিরাজের করা ২৭তম ওভারে। এক ওভারের শেষ দুই বলে ফিরে যান কিং ও আকিল হোসেন।

৭২ রানের মাথায়ই বোল্ড আউট হন কিং আর রান আউট হয়ে ফিরে যান আকিল। শেষদিকে ক্যারিবীয় ইনিংসের ইতি টানেন মেহেদী মিরাজ। তার স্পিনে শেফার্ড ও আলজারি জোসেফ সাজঘরে ফিরে যান। এক প্রান্তে দাঁড়িয়ে থাকা কিমো পল কেবল দলের সংগ্রহ কিছুটা বাড়িয়েছেন। ৩৫ ওভারে ১০৮ রানে থামে ক্যারিবিয়দের ইনিংস।

টাইগারদের হয়ে ৪টি উইকেট শিকার করেন মিরাজ এবং ৩টি উইকেট নেন নাসুম। বল হাতে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের জন্য ম্যাচ সেরা হন বাঁহাতি স্পিনার নাসুম।