অস্ট্রেলিয়ায় বহু ভাষা-ভাষীদের অংশগ্রহণে একুশ উদযাপন

0
30

নিউজ ডেস্ক:
অস্ট্রেলিয়ায় বহু ভাষা-ভাষীদের অংশগ্রহণে উদযাপিত হয়েছে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। রাজধানী ক্যানবেরায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের এসব আয়োজনে ক্যানবেরার মন্ত্রী, রাষ্ট্রদূত-কূটনৈতিকসহ প্রবাসী বাংলাদেশিরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেন।

প্রভাতফেরীসহ গত তিন বছরের মত এবারও ক্যানবেরার তেলোপিয়া পার্কে মানুকা সার্কিট ও নিউ সাউথ ওয়েলস স্ট্রিটের ক্রসরোডে স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

প্রভাতফেরী সকাল ৬ টা ২০ মিনিটে শুরু হয়ে মানুকা ওভাল ঘুরে অস্থায়ীভাবে স্থাপিত শহিদ মিনার প্রাঙ্গণে শেষ হয়।

এতে অংশগ্রহণ করেন এসিটি গভর্নমেন্টের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাসেল স্টিফেন স্মিথ, অ্যাটর্নি জেনারেল ও এসিটি গ্রিন দলের নেতা শেন রাতেনবারি, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, অষ্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন সরকারি দফতরের প্রতিনিধি, সার্ক রাষ্ট্রসমূহের বিভিন্ন ভাষা-ভাষীদের প্রতিনিধি, অষ্ট্রেলিয়ায় বসবাসরত প্রবাসী ও অভিবাসীরা, অস্ট্রেলিয়া সফরররত বাংলাদেশের এক প্রতিনিধি দলের সদস্যবৃন্দ এবং বাংলাদেশ হাইকমিশনের কর্মকর্তা/কর্মচারীরা। অংশগ্রহণকারীরা অস্থায়ী শহিদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময় ভাষা শহিদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সংক্ষিপ্ত আলোচনা অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সুফিউর রহমান, ভারতের হাইকমিশনার মনপ্রিত ভোরা, এসিটি গভর্নমেন্টের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাসেল স্টিফেন স্মিথ , অ্যাটর্নি জেনারেল ও এসিটি গ্রিন দলের নেতা শেন রাতেনবারি সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন।

সুফিউর রহমান বলেন, ‘বিশ্বের প্রায় ৭৯০ কোটি মানুষ প্রায় ৭ হাজার ভাষায় কথা বলেন যার প্রায় অর্ধেকই ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। এসব মাতৃভাষা সংরক্ষণে দেশ ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের সচেতনতা সৃষ্টির ওপর গুরুত্বারোপ করেন বাংলাদেশের হাইকমিশনার।

বাংলাদেশ বহুভাষা ও সংস্কৃতি সংরক্ষণের গুরুত্ব গভীরভাবে অনুভব করে। বক্তাগণ মহান শহিদ দিবস ও আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরেন তিনি।

এসময় ভারতের রাষ্ট্রদূতসহ বক্তারা সাম্প্রতিক বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অর্জনে এবং ভাষার সম্মান রক্ষায় বাংলাদেশের নেতৃত্বের প্রশংসা করেন। তারা বর্তমান বিশ্বের অস্থিরতা মোকাবিলার জন্য বহু সংস্কৃতিবাদ ও ভাষার অন্তর্ভুক্তির ওপর জোর দেন।

একুশের ব্যাপারে সম্যক অবহিত করা এবং নৃ-তাত্ত্বিক ভাষাসহ সব মাতৃভাষার সম্মান তাদের মানসে বিস্তারের লক্ষ্যে গত বছরের ন্যায় এবারও এই অস্থায়ী শহিদ মিনার চার দিনব্যাপী খোলা রাখা হয়েছে।

সকাল ৮টায় হাইকমিশন প্রাঙ্গণে হাইকমিশনার সুফিউর রহমান জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করেন এবং দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রদত্ত বাণী পাঠ করা হয়। নিজ নিজ ধর্মমত ও প্রথা অনুযায়ী ভাষা শহিদদের উদ্দেশে মৌন প্রার্থনা এবং তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাতের মধ্য দিয়ে দিবসটির প্রথম প্রহরের অনুষ্ঠান শেষ হয়।

সন্ধ্যায় দেড় শতাধিক অষ্ট্রেলিয়া প্রবাসী ও অভিবাসী বাংলাদেশির অংশগ্রহণে বাংলাদেশ হাইকমিশনে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ওপর এক আলোচনা সভা আয়োজন করা হয়।

এতে হাই কমিশনারসহ অষ্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিরা আলোচনায় অংশ নেন। হাইকমিশনার আপন ভাষাপ্রীতি যেন বর্ণবাদে না গড়ায় ও ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠীও ভাষাভাষীদের অধিকার ক্ষুন্ন না করে এ বিষয়ে সজাগ থাকার কথা বলেন।

আলোচনায় আরও অংশ নেন অস্ট্রেলিয়া সফররত বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ। আলোচনা শেষে ভাষা শহিদদের স্মরণে ও বাংলাদেশকে উপজীব্য করে স্থানীয় বাংলাদেশি শিল্পীদের পরিবেশনায় এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।